• ঢাকা
  • বৃহস্পতিবার, ৮ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ১৪ নভেম্বর, ২০২২
সর্বশেষ আপডেট : ১৪ নভেম্বর, ২০২২

আমার সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করা হয়েছে: রোনালদো

অনলাইন ডেস্ক
আমার সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করা হয়েছে: রোনালদো

বিশ্বকাপ বিরতিতে যাওয়ার সময় যেন বোমা ফাটালেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। কাঠগড়ায় দাঁড় করালেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড কোচ এরিক টেন হাগ এবং ক্লাবের কয়েকজন কর্মকর্তাকে। পর্তুগিজ মহাতারকা অভিযোগ করলেন বিশ্বাসঘাতকতা করা হয়েছে তার সঙ্গে।

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সঙ্গে রোনালদোর টানাপোড়েন চলছে অনেকদিন ধরেই। লম্বা সময় ধরে এসব নিয়ে চুপই ছিলেন তিনি। বলেছিলেন, একটি সাক্ষাৎকারে পরিষ্কার করবেন সব। বিশ্বকাপ বিরতি শুরু হওয়ার দিন সোমবার ব্রডকাস্টার পিয়ার্স মর্গ্যানকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে খোলামেলা কথা বললেন অনেক কিছু নিয়েই।

ইউনাইটেডের যেকোনো সমস্যায় কেউ কেউ কীভাবে যেন রোনালদোকে সম্পৃক্ত করে ফেলেন। এ নিয়ে বিরক্তি প্রকাশ করলেন পর্তুগাল অধিনায়ক। সমালোচনা করলেন ইউনাইটেডের সাবেক অন্তর্বর্তীকালীন কোচ রালফ রাংনিকেরও।

স্পেন ও ইতালিতে এক যুগ কাটিয়ে ২০২১-২২ মৌসুমে ইউনাইটেডে ফেরেন রোনালদো। সেবার দলের সেরা খেলোয়াড় ছিলেন তিনিই। সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ৩৭ ম্যাচে করেন ২৪ গোল।

চলতি মৌসুমে সেভাবে নিজেকে মেলে ধরতে পারছেন না রোনালদো। শুরুর একাদশে জায়গা মিলছে না নিয়মিত। এখন পর্যন্ত সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ১৬ ম্যাচে গোল কেবল তিনটি।

সম্প্রতি আলোচনায় আসেন তিনি শৃঙ্খলা ভেঙে। গত অক্টোবরে প্রিমিয়ার লিগে টটেনহ্যাম হটস্পারের বিপক্ষে ম্যাচে শুরুর একাদশে জায়গা না পাওয়া রোনালদো ৮৯তম মিনিটে মাঠ ছেড়ে টানেলের দিকে রওনা হন। এরপর ইউনাইটেডে কোচ টেন হাগ জানান, বদলি নামতেও অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড।

ওই কাণ্ডের জন্য শাস্তি দেওয়া হয় তাকে। ম্যাচের পাশাপাশি মূল দলের সঙ্গে অনুশীলনেও নিষিদ্ধ ছিলেন তিনি। পরে অবশ্য দলে ফেরেন।

ইউনাইটেডে খুশি নন রোনালদো, ছাড়তে চান ক্লাব এমন গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল অনেকদিন ধরেই। কোনো রাখঢাক না রেখে এবার পুরো ক্লাবের সমালোচনা করলেন পর্তুগিজ এই তারকা। উগড়ে দিলেন ক্ষোভ।

“আমার তার (টেন হাগ) প্রতি কোনো শ্রদ্ধা নেই, কারণ তিনি আমাকে সম্মান দেখাননি। কারো যদি আমার প্রতি শ্রদ্ধা না থাকে, আমিও তাকে কখনও সম্মান দেখাব না।”

চলতি মৌসুমের শুরুতে নতুন ক্লাবের খোঁজে ছিলেন রোনালদো। তবে এর জন্য ইউনাইটেডকেই দায় দিলেন তিনি। বললেন, ক্লাব ও টেন হাগ তাকে বাধ্য করে এমন কিছু করতে।

“ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড আমাকে জোর করে বের দেওয়ার চেষ্টা করছিল। শুধু ম্যানেজার নয়, আরও দুই-তিন জন যারা ক্লাবের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। আমার সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করা হয়েছে, এমনটা অনুভব করছি। আমি এসব পাত্তা দেইনা, লোকের সত্যিটা জানা উচিত। হ্যাঁ, আমার সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করা হয়েছে। আমার মনে হয়েছে, কিছু মানুষ আমাকে এখানে চায়নি, শুধু এই বছরই নয় গত মৌসুমেও।”

আরও পড়ুন

%d bloggers like this: